ভার্চ্যুয়াল কোর্ট পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধের সিদ্ধান্ত

দুই দফায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের করার পর মহামারী করোনা ভাইরাস সঙ্কটের মধ্যে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকরা ভিডিও কনফারেন্সে সভা করে আদালতের কার্যক্রম ৫ মে পর্যন্তই বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

২৬/০৪/২০১৮, রোববার অনুষ্ঠিত সুপ্রিম কোর্টের ফুল কোর্ট সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়। এর ফলে সাধারণ ছুটিতে আদালত খুলছে না। সভায় ভার্চ্যুয়াল কোর্ট পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ জানানোর বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয়। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। আজ রোববার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে শুরু হয়ে প্রায় ২ ঘণ্টা ধরে চলা ফুল কোর্ট সভায় সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের ৮৮ জন বিচারপতি অংশ নেন। আর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এই ফুল কোর্ট সভা দেশের বিচার বিভাগের ইতিহাসে প্রথম।

সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে, সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের (আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগ) সব বিচারিক কার্যক্রম ৫ মে পর্যন্ত স্থগিত থাকবে। হাইকোর্ট বিভাগের রুলস প্রণয়ন কমিটি পুনর্গঠন করা হবে। এ ছাড়া সভায় অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে ভার্চ্যুয়াল কোর্ট পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ জানানোর বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয় বলে সভাসশ্লিষ্ট একটি সূত্রে জানা গেছে।

নিম্ন আদালতও ৫ মে পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আদালত পরিচালনার বিষয়ে বিচারক, আইনজীবীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে এই সভায়।

প্রশিক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের ‘স্পেশাল কমিটি ফর জুডিশিয়াল রিফর্মস’ কমিটিকে।